ঢাকা শুক্রবার, জানুয়ারী ২৮, ২০২২
৪৬ শতাংশ নিয়োগকারী দক্ষ কর্মী পাচ্ছে না
  • ব্যাংকবীমাবিডি
  • ২০২১-১২-০৫ ০৯:৪৯:০৯

বেসরকারি খাতের ৪৬ শতাংশ নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান তাদের বিভিন্ন পদে নিয়োগ করতে গিয়ে চাহিদা অনুযায়ী দক্ষ কর্মী পাচ্ছে না। এ ছাড়া চাকরিপ্রত্যাশীদের অভিজ্ঞতা ও শিক্ষাগত যোগ্যতার ঘাটতিও কর্মী নিয়োগে অন্যতম বাধা।

গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) এক গবেষণায় এমন চিত্র উঠে এসেছে। গতকাল শনিবার 'দক্ষতার ঘাটতি ও বাংলাদেশে যুব কর্মসংস্থান' শীর্ষক এক সংলাপ অনুষ্ঠানে এ গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে। ১০০ নিয়োগকর্তা ও ৫০০ চাকরিপ্রত্যাশীদের অনলাইনে সাক্ষাৎকার নিয়ে এ গবেষণা প্রতিবেদন তৈরি করেছে সিপিডি। রাজধানীর মহাখালীর ব্র্যাক সেন্টারে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানগুলো চাকরিপ্রত্যাশীদের কাছে যোগাযোগ, সমস্যা সমাধান এবং টিম ওয়ার্ক ও লিডারশিপ বিষয়ে দক্ষতা আশা করে। কিন্তু এসব বিষয়ে তেমন দক্ষ লোক পাওয়া যায় না। এ ছাড়া প্রয়োজনীয় প্রযুক্তি দক্ষতারও ঘাটতি রয়েছে। ৫১ শতাংশ চাকরিপ্রত্যাশীর মধ্যে যে কোনো ধরনের কাজে যোগদানে আগ্রহের ঘাটতি রয়েছে। ৪৬ শতাংশের কোনো ধরনের প্রশিক্ষণ নেই। ৩৫ শতাংশ নতুন প্রযুক্তি ব্যবহারে অক্ষম।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, শুধু কৃষি থেকে শিল্পে নয়, একটি পরিপূর্ণ রূপান্তর চাচ্ছে সরকার। এ জন্য মানসিক, সামাজিক আধুনিকায়ন, বিজ্ঞান প্রযুক্তির প্রসারের উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক বাজার মাথায় রেখেই উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে।

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি সংসদ সদস্য শিরীন আখতার বলেন, প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায় থেকেই শিক্ষার্থীকে কাজের মানসিকতা সৃষ্টি করতে হবে। তাদের কাজের জন্য প্রস্তুত করা, নিজের দক্ষতা সৃষ্টিতে মনোযোগী করা দরকার। শিক্ষার গুণগত মান বাড়াতে হবে।

এমসিসিআই সভাপতি নিহাদ কবির বলেন, নিয়োগের পদ্ধতি বা যোগ্যতার মাপকাঠিতে পরিবর্তন আনতে হবে। যোগাযোগ দক্ষতায় তরুণ প্রজন্মের ব্যাপক ঘাটতি রয়েছে। ভাষাগত সমস্যা আছে। এ জন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের উদ্যোগ দরকার। আর নিয়োগ কর্তাদের মানসিকতায় পরিবর্তন আনতে হবে।

অ্যাপেক্স ফুটওয়্যারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ নাসিম মঞ্জুর বলেন, তরুণরা যে ধরনের কাজ চায়, আর দেশে যে কাজের সুযোগ তৈরি হচ্ছে তার মধ্যে পার্থক্য আছে। জুতার দোকান বা চামড়ার কারখানায় চাকরি করা যাবে না- এ মানসিকতা থেকে বের হতে হবে।

সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ফাহমিদা খাতুন বলেন, তরুণ জনগোষ্ঠীর শ্রমবাজারে প্রবেশে বাধা রয়েছে। দেশের শ্রমবাজারে কাজ প্রত্যাশীরা কাজ পাচ্ছে না। অন্যদিকে নিয়োগ কর্তারা যোগ্য কর্মী পাচ্ছেন না। অর্থাৎ চাহিদা ও সরবরাহের মধ্যে সামঞ্জস্যতা নেই। তিনি বলেন, এখন বিশ্ববিদ্যালয়ের সনদের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কারিগরি দক্ষতা। এ জন্য কারিগরিভাবে দক্ষ লোক বাড়াতে হবে। এটি এখন জাতীয় চ্যালেঞ্জ।

বিডি জবসের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফাহিম মাশরুর বলেন, চাকরির জন্য যেভাবে নির্বাচন করা হয় সেখানে কিছু ত্রুটি আছে। যে কাজের জন্য নিযোগ করা হচ্ছে, তার সঙ্গে ইংরেজি জানার প্রয়োজন না থাকলেও ইংরেজির দক্ষতা খোঁজা হয়। নিয়োগ কর্তাদের এই চিন্তা থেকে বের হতে হবে।

অনুষ্ঠানে ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সালমা বেগম, ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটির শিক্ষক কাজী মাহমুদুর রহমান, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সাজ্জাদ হোসেন, অধ্যাপক এ এফ এম আতাউর রহমান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

ম্যানেজমেন্ট ট্রেইনি অফিসার নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি
মধুমতি ব্যাংকে ১৬ পদে চাকরির সুযোগ
ডাচ-বাংলা ব্যাংকে ৫০ হাজার টাকা বেতনে চাকরি