ঢাকা শনিবার, মে ১৫, ২০২১
দেশের ব্যাংকসহ ১৯ সংস্থার ডাটা চুরি হ্যাকার গ্রুপের
  • ব্যাংকবীমাবিডি
  • ২০২১-০২-১৯ ১৫:২৪:৩৪

বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক একটি হ্যাকার গ্রুপ ‘ক্যাসাব্ল্যাঙ্কা’ নামের একটি ম্যালওয়্যার ভাইরাস দিয়ে তথ্য চুরি করেছে। দেশের আর্থিক খাতের কয়েকটি প্রতিষ্ঠানসহ মোট ১৯টি সরকারি ও বেসরকারি সংস্থার ওয়েবসাইট থেকে এই তথ্য চুরি করা হয় ভাইরাসাটির মাধ্যমে।

হ্যাকার গ্রুপটি ভাইরাসের মাধ্যমে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইট থেকে তথ্য চুরি করে হ্যাকার গ্রুপের কাছে পাঠাচ্ছে। চুরি করা তথ্য দিয়ে হ্যাকার গ্রুপটি ওইসব প্রতিষ্ঠানে সাইবার হামলা চালাতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এদিকে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকেও সম্ভাব্য সাইবার হামলা ঠেকাতে সব ধরনের সর্বোচ্চ প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাইবার রেসপন্স টিমও সতর্ক রয়েছে। বাণিজ্যিক ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকেও সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে।

সরকারের ই-গভর্নমেন্ট কম্পিউটার ইনসিডেন্ট রেসপন্স টিমের (সার্ট) সাইবার ডায়াগনসিস ল্যাব থেকে অনুসন্ধান করে এসব তথ্য পেয়েছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে সার্ট থেকে আর্থিক খাতসহ সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোতে সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করেছে।

একই সঙ্গে কোনো ধরনের অঘটন বা অনলাইন লেনদেন বা ওয়েবসাইটে কোনো সমস্যা দেখা দিলে তা সঙ্গে সঙ্গে কেন্দ্রীয় সার্টকে জানাতে বলা হয়েছে। সার্টের সাইবার রেসপন্স টিম সার্বক্ষণিকভাবে এখন কাজ করছে।

সূত্র জানায়, সার্টের ফরেনসিক ল্যাবের অনুসন্ধানে দেখা গেছে, ভাইরাসটি দেশের কয়েকটি ব্যাংকের ওয়েবসাইটে অবস্থান করে তারা বেশ কিছু ডাটা চুরি করেছে। একইসঙ্গে বিভিন্ন তথ্যও চুরি করেছে।

যে তিনটি ব্যাংকের ওয়েবপেজ থেকে ডাটা চুরি করেছে সেগুলো বড় আকারের বাণিজ্যিক ব্যাংক। অপর একটি গুরুত্বপূর্ণ আর্থিক নিয়ন্ত্রক। একটি মোবাইল ব্যাংকিং সেবা দানকারী প্রতিষ্ঠানের তথ্যও চুরি করা হয়েছে। এছাড়া একটি মোবাইল ফোন অপারেটরের তথ্যও চুরি করেছে।

সূত্র জানায়, ভাইরাসটি কিছু প্রতিষ্ঠানের তথ্য চুরি করলেও এখনো কোনো সাইবার হামলা চালাতে পারেনি। হামলা চালানোর আর কোনো সক্ষমতাও নেই ভাইরাসটির।

সার্টের তথ্যানুযায়ী, এর বাইরে সরকারের করোনা বিডি অ্যাপ, পুলিশের ওয়েবসাইট, বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক কমিশন (বিটিআরসি) ওয়েবপেজ থেকেও তথ্য চুরি করেছে। এসব প্রতিষ্ঠানও এখন সতর্ক হয়েছে। এর আগে গত মঙ্গলবারও সার্ট থেকে সতর্কতা জারি করা হয়।

এর আগে গত বছরের সেপ্টেম্বরে দেশের আর্থিক খাতে সাইবার হামলা চালাতে ম্যালওয়্যার পাঠানো হয়েছিল। উত্তর কোরীয় একটি হ্যাকার গ্রুপ এই ম্যালওয়্যারটি পাঠিয়েছিল। তবে ওই সময়ে আগে থেকে সতর্ক সংকেত পাওয়ায় ভাইরাসটি হামলা চালিয়ে সফল হতে পারেনি। পর্যায়ক্রমে এটিকে সব সার্ভার থেকে সরিয়ে ফেলা হয়েছে।

এরপর এ বছরের জানুয়ারিতে আরেকটি ম্যালওয়্যার ভাইরাসের সন্ধান পায় সার্ট। এটি বিভিন্ন সংস্থার অনলাইন সার্ভারকে কেন্দ্র করে অবস্থান করছিল।

ইন্টারনেট ব্যাংকিং গ্রাহক মাত্র ৩ শতাংশ !
হোয়াটসঅ্যাপে ব্যাংকিং
মারা গেলেন পিডিএফ ও ফটোশপের উদ্ভাবক চার্লস গ্যাসকি