ঢাকা রবিবার, জুলাই ১৪, ২০২৪
রাষ্টায়াত্ব ব্যাংকের শীর্ষকর্তাদের ১৬ শতাংশ নারী
  • ব্যাংকবীমাবিডি
  • ২০২৩-০৯-১৯ ১২:৩৯:৩২

ব্যাংকের চাকরিতে অংশ বাড়ছে নারীকর্মীদের। নতুন করে চাকরিতে এসেছেন এমন ব্যাংকারদের মধ্যে এখন ১৭ শতাংশই নারী। একসময় মোট কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে নারী ছিল ১০ শতাংশের নিচে। আবার ব্যাংকের উচ্চপদেও বাড়ছে নারীদের আধিপত্য। বর্তমানে রাষ্ট্রীয় ব্যাংকগুলোর উচ্চপদে নারীকর্মী ১৬ শতাংশের বেশি। নারীকর্মীদের চাকরি বদলের প্রবণতাও আগের তুলনায় কমেছে। ব্যাংক খাতের ওপর বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ লিঙ্গসমতাবিষয়ক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য বলছে, ২০২৩ সালের জুন শেষে দেশের ব্যাংক খাতে নারীকর্মীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩২ হাজার ৫৬৭ জন। বর্তমানে নারী কর্মকর্তার হার ১৬ দশমিক ৩২ শতাংশ। ২০২২ সালের ডিসেম্বর শেষে নারীকর্মীর সংখ্যা ছিল ৩১ হাজার ৯৩৯। সে সময় ব্যাংকে নারী কর্মকর্তার হার ছিল ১৬ দশমিক ২৯ শতাংশ। আর ২০২১ সালে ছিল ১৫ দশমিক ৮০ শতাংশ। ব্যাংকে নারীর প্রতিনিধিত্ব বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তা হিসেবেও নারীদের দেখা যাচ্ছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রকাশিত ২০২৩ সালের জানুয়ারি-জুন সময়ের পরিসংখ্যান বলছে, ব্যাংকে যারা ক্যারিয়ার শুরু করছেন, তাদের মধ্যে ১৬ দশমিক ৯৯ শতাংশ নারী। ব্যবস্থাপনার মধ্যম স্তরে নারীদের অংশগ্রহণ ১৫ দশমিক ৭৭ শতাংশ। আর ব্যাংকের উচ্চপর্যায়ে যারা নেতৃত্ব দিচ্ছেন, তাদের মধ্যে ৯ দশমিক ২৮ শতাংশ নারী।

তথ্য বলছে, রাষ্ট্রের মালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর উচ্চপর্যায়ে নারীরা বেশি কর্মরত আছে। এসব ব্যাংকের উচ্চপর্যায়ে নারীদের অংশগ্রহণ ১৬ দশমিক ১ শতাংশ। এরপরের অবস্থানে থাকা বিদেশি ব্যাংকগুলোতে উচ্চপদে নারীদের অংশগ্রহণ ১৩ শতাংশ। আর বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকের উচ্চপদে কর্মরত কর্মীদের মধ্যে নারীর হার ৭ দশমিক ১৯ শতাংশ। আর বোর্ড সদস্য বা পরিচালক হিসেবে নারীদের অংশগ্রহণ ১৪ শতাংশ।

চলতি বছর সরকার রাষ্ট্রমালিকানাধীন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান ও পরিচালক নিয়োগসংক্রান্ত নতুন এক নীতিমালা করেছে। সেই নীতিমালায় বলা হয়েছে, এসব প্রতিষ্ঠানের পরিচালকদের এক-তৃতীয়াংশই থাকবেন নারী। এ ছাড়া সরকারের শেয়ার রয়েছে, এমন বেসরকারি ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রেও এ নীতিমালা অনুসরণ করতে হবে।

ব্যাংকে নারীদের কর্মসংস্থানের সবচেয়ে বড় অংশীদার হলো দেশের বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো। বর্তমানে ৩২ হাজার ৫৬৭ জন নারী ব্যাংক খাতে কর্মরত আছেন। এর মধ্যে ২১ হাজার ৮৭৯ জন কাজ করছেন দেশের বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোয়। এ ছাড়া রাষ্ট্রায়ত্ত ছয় ব্যাংকে নারীকর্মীর সংখ্যা ৭ হাজার ৯৪৬, বিশেষায়িত তিন ব্যাংকে ১ হাজার ৭৭২, বিদেশি মালিকানায় থাকা ৯ ব্যাংকে ৯৭০ জন নারীকর্মী কর্মরত রয়েছেন।

ব্যাংক কর্মকর্তারা বলছেন, পড়ালেখা শেষ করে ব্যাংকগুলোয় প্রচুর নারীকর্মী যোগ দেন। কিন্তু পরে তাদের একটা অংশ চাকরি ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়। মূলত কাজের চাপ সামলাতে না পারা ও সন্তান লালনপালনের জন্য ব্যাংকের চাকরি ছাড়েন তারা। কেন্দ্রীয় ব্যাংক বলছে, ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানে কর্মরত কর্মকর্তাদের মধ্যে ১৬ শতাংশ নারীকর্মী রয়েছেন। তাদের মোট সংখ্যা ১ হাজার ৪০ জন। এটি ২০২১ সালের ডিসেম্বর প্রান্তিক থেকে তিনজন বা শূন্য দশমিক ২৯ শতাংশ কম। আর্থিক প্রতিষ্ঠানে কর্মরত নারীদের মধ্যে বোর্ড সদস্যদের ১৫ দশমিক ৭৭ শতাংশ। আর নতুন কর্মক্ষেত্রে যুক্ত হয়েছেন ২২ দশমিক শূন্য ৫ শতাংশ। এ ছাড়া মধ্যবর্তী পর্যায়ে কর্মরত ১৩ দশমিক শূন্য ৭ শতাংশ। আর উচ্চপর্যায়ে কর্মরত রয়েছেন ৯ দশমিক শূন্য ২ শতাংশ।

রূপালী ব্যাংকে অফশোর ব্যাংকিং বিষয়ক সেমিনার
রাষ্টায়াত্ব ব্যাংকের শীর্ষকর্তাদের ১৬ শতাংশ নারী
সোনালী ব্যাংকের নতুন পদোন্নতির  নীতিমালা বাতিলে রুল