শনিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:২৫ অপরাহ্ন

অভিনব পন্থায় ব্যাংক থেকে ৫৮ লাখ টাকা আত্মসাৎ

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম শুক্রবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৯০৬ বার পঠিত

জ্বালানি তেল সরবরাহকারী চট্টগ্রামের প্রতিষ্ঠান হা-মিম ট্রেডার্স। প্রতিষ্ঠানটির ঢাকায় কর্মরত এক কর্মী নিজে মালিক সেজে একই নামে একটি চলতি হিসাব খুলেছেন। ১৫ দিন আগে খোলা এ হিসাবে জমা করেছেন চট্টগ্রামের প্রতিষ্ঠানের নামে সংগ্রহ করা ৫৮ লাখ টাকার অ্যাকাউন্ট পেয়ি চেক। বিকালেই আবার সেই টাকা এক চেকে নগদ তুলে নিয়েছেন। লেনদেনের পুরো ঘটনাটি ঘটেছে বেসরকারি প্রাইম ব্যাংক লিমিটেডে। অর্থ আত্মসাতের এ ঘটনায় ব্যাংকটির কর্মকর্তাদের যোগসাজশের অভিযোগ তুলে এরই মধ্যে মামলা করেছেন ভুক্তভোগী ব্যবসায়ী।

চট্টগ্রামের হা-মিম ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী হারুন-উর-রশিদ বাদী হয়ে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গুলশান থানায় বুধবার মামলাটি করেছেন। এজাহারে তিনি উল্লেখ করেছেন, তার প্রতিষ্ঠান নিয়মিতভাবে দেশের বিভিন্ন কারখানায় জ্বালানি তেল সরবরাহ করে। মূল প্রতিষ্ঠান চট্টগ্রামে হওয়ায় ব্যবসায়িক সুবিধার্থে ঢাকায় চেক সংগ্রহ করার জন্য মো. জাকারিয়া খোকনকে অস্থায়ী ভিত্তিতে নিয়োগ দেয়া হয়। তিনি গত ২৫ আগস্ট নাসির গ্রুপের প্রধান কার্যালয় থেকে ৫৮ লাখ ৭০ হাজার ৮২৯ টাকার একটি যমুনা ব্যাংক লিমিটেডের চেক সংগ্রহ করেন।

হারুন-উর-রশিদ অভিযোগ করেন, আমার প্রতিষ্ঠানের নামের অনুকরণে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) ট্রেড লাইসেন্স সংগ্রহ করে ওই নামে উত্তরায় প্রাইম ব্যাংক লিমিটেডের গরীব-ই-নেওয়াজ শাখায় একটি ব্যাংক হিসাব চালু করেন। পরে ওই হিসাবে জাকারিয়া খোকন নাসির গ্রুপ থেকে সংগ্রহ করা যমুনা ব্যাংকের চেকটি গত ২৭ আগস্ট জমা করেন এবং ওইদিনই তিনি পুরো টাকা তুলে নেন। এরপর থেকে জাকারিয়া খোকন লাপাত্তা হয়ে রয়েছেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গুলশান থানার উপপরিদর্শক মো. শহিদুল ইসলাম জানান, পাবনা চকগোবিন্দা দক্ষিণ পাড়ার আব্দুল গফুর প্রামাণিকের ছেলে জাকারিয়া খোকন পলাতক রয়েছেন। তাকে গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। পাশাপাশি এ ঘটনায় অন্য কারো যোগসাজশ রয়েছে কিনা তা-ও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

এজাহারে তিনি আরো অভিযোগ করেন, জাকারিয়া খোকন তার অজ্ঞাতনামা সহযোগীদের যোগসাজশে আমার কোম্পানির নামে ভুয়া ও জাল কাগজপত্র তৈরি করেন। পরে ওই কাগজপত্র দিয়ে ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট চালু করে নাসির গ্রুপ থেকে আমার প্রতিষ্ঠানের নামে সংগ্রহ করা চেকটি নিজের অ্যাকাউন্টে জমা করে ৫৮ লাখ ৭০ হাজার ৮২৯ টাকা আত্মসাৎ করেছেন।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে যোগাযোগ করা হয় প্রাইম ব্যাংকের গরীব-ই-নেওয়াজ শাখায়। তাদের তথ্যমতে, গত আগস্টের মাঝামাঝি সময়ে জাকারিয়া খোকন ব্যাংকটিতে অ্যাকাউন্ট চালু করেন। পরবর্তী সময়ে ২৭ আগস্ট সকালে তার অ্যাকাউন্টে যমুনা ব্যাংকের একটি অ্যাকাউন্ট পেয়ি চেক জমা দেন। বেলা ৩টার দিকে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক থেকে ক্লিয়ারেন্স পাওয়ার পর তার অ্যাকাউন্টে টাকা দেয়া হয়। বেলা সাড়ে ৩টার দিকে জাকারিয়া খান প্রাইম ব্যাংকের পাবনা শাখা থেকে চেকের মাধ্যমে টাকা নগদ তুলে নেন।

১৫ দিন আগে চালু করা একটি ব্যাংক হিসাবে ৫৮ লাখ ৭০ হাজার ৮২৯ টাকার অ্যাকাউন্ট পেয়ি চেক জমা হওয়ার বিষয়ে জানতে যোগাযোগ করা হলে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া নাম প্রকাশ করতে চাননি প্রাইম ব্যাংকের গরীব-ই-নেওয়াজ শাখার দায়িত্বশীল ওই কর্মকর্তা। তিনি বলেন, অ্যাকাউন্ট পেয়ি চেক হওয়ায় সেটি যথাযথ ব্যাংকের অনুমতিক্রমেই জাকারিয়া খোকনের হা-মিম ট্রেডার্সের নামে খোলা চলতি ব্যাংক হিসাবে দেয়া হয়েছে। পরে তিনি পাবনা শাখা থেকে এ টাকা নগদ তুলে নিয়েছেন। তাছাড়া হিসাব চালু করার আগে যথাযথ নিয়ম মেনেই তার ট্রেড লাইসেন্সে দেয়া ঠিকানা যাচাই করা হয়েছে। আশপাশেও খোঁজ নেয়া হয়েছে। সবকিছু ঠিক থাকায় তার অ্যাকাউন্ট চালু করা হয়েছে।

হা-মিম ট্রেডার্সের নামে অ্যাকাউন্ট চালুর ক্ষেত্রে জাকারিয়া খোকন ভ্যাট নিবন্ধন বা টিআইএন সনদ দিয়েছেন কিনা জানতে চাইলে ব্যাংকের ওই কর্মকর্তা দাবি করেন, কারেন্ট অ্যাকাউন্ট খুলতে তাদের ভ্যাট নিবন্ধন বা টিআইএন সনদের প্রয়োজন হয় না।

প্রাইম ব্যাংকের গরীব-ই-নেওয়াজ শাখা থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে যোগাযোগ করা হয় ব্যাংকটির পাবনা শাখায়। ওই শাখার দায়িত্বশীল কর্মকর্তাও নাম প্রকাশ করে কথা বলতে চাননি। নাম না প্রকাশের শর্তে তিনি বলেন, জাকারিয়া খোকন গত ২৭ আগস্ট হা-মিম ট্রেডার্সের ব্যাংক হিসাবে ৫৮ লাখ ৭০ হাজার টাকার একটি চেক জমা দেন। সঙ্গে সঙ্গে বিষয়টি গরীব-ই-নেওয়াজ শাখায় অবহিত করা হলে তারা চেকটি ক্যাশ করে দিতে বলেন। তাদের কথার ভিত্তিতেই এক চেকে জাকারিয়া খোকনকে ৫৮ লাখ ৭০ হাজার টাকা নগদ প্রদান করা হয়।

এদিকে ভুক্তভোগী চট্টগ্রামের হা-মিম ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী হারুন-উর-রশিদ বণিক বার্তাকে বলেন, আমি ২০ বছর ব্যবসা করি। কখনই এক চেকে এত বড় অংকের টাকা চট্টগ্রামেও তুলতে পারিনি। সাধারণত ৫০ লাখ টাকা তুলতে হলে আগে থেকে ব্যাংকে রিকুইজিশন দিয়ে রাখতে হয়। তারপর দুটি বা তিনটি চেক দিয়ে টাকা তুলতে হয়। অথচ জাকারিয়া খোকন নতুন একটি ব্যাংক হিসাব খুলেই এত টাকা এক চেকে তুলে নিলেন। এক্ষেত্রে অবশ্যই তার সঙ্গে ব্যাংকের কর্মকর্তাদের যোগসাজশ রয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2019 Bankbimabd
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebazarbankbimabd41