বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ১০:০৫ পূর্বাহ্ন

নুহ (আ.) সন্তানকে কী নিষেধ করেছিলেন ?

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম শুক্রবার, ২৫ অক্টোবর, ২০১৯
  • ৩৪৫ বার পঠিত

একজন মানুষ গোটা জীবনে যত কথা বলে থাকে, তার অন্তিম বা শেষ সময়ের কথাকে সব ধর্ম ও সভ্যতায় বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়ে থাকে। বিশেষত, সেসব কথা যদি কোনো নবীর অন্তিম উপদেশ হয়, তাহলে তার গুরুত্ব আরো বহুগুণ বেশি। হজরত নুহ (আ.) সম্পর্কে বলা হয়ে থাকে যে তিনি আদমে সানি তথা মানবজাতির দ্বিতীয় পিতা। গোটা পৃথিবীতে তাঁর আমলে মহাপ্রলয় হয়েছিল। তখন পৃথিবীর সব কিছু ধ্বংস হয়ে গেছে। এরপর তাঁর ও তাঁর বংশধরদের মাধ্যমে এক নতুন পৃথিবী যাত্রা শুরু করে। তাঁর সম্পর্কে বর্ণিত হয়েছে : আবদুল্লাহ বিন আমর (রা.) বলেন, আমরা একদিন রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর কাছে বসে ছিলাম। এরই মধ্যে একজন ব্যক্তি আগমন করল, যার পরিধানে ছিল এক ধরনের মাছ রঙের জুব্বা। সে রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর মাথা বরাবর দাঁড়িয়ে বলল, হে আল্লাহর রাসুল, আপনার সঙ্গীরা আরোহীদের অবদমিত করছে। রাসুলুল্লাহ (সা.) তখন তার জুব্বার বন্ধনস্থল ধরে বলেন, আমি কি তোমাকে নির্বোধের পোশাকে দেখছি না? অতঃপর তিনি বলেন, “আল্লাহর নবী নুহ (আ.) মৃত্যুকালে স্বীয় পুত্রকে অসিয়ত করে বলেন, আমি একটি অসিয়তের মাধ্যমে তোমাকে দুটি বিষয়ে নির্দেশ দিচ্ছি এবং দুটি বিষয়ে নিষেধ করে যাচ্ছি। নির্দেশ হলো তুমি বলবে ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’। কেননা আসমান ও জমিনের সব কিছু যদি এক হাতে বা পাল্লায় রাখা হয় এবং এটিকে যদি এক হাতে বা পাল্লায় রাখা হয়, তাহলে এটিই ভারী প্রতিপন্ন হবে। সাত আসমান ও সাত জমিন যদি একটি জটিল গ্রন্থির রূপ ধারণ করে তবে ‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ’ ও ‘সুবহানাল্লাহি ওয়া বিহামদিহি’ তা ভেঙে দেবে। কেননা এটি সব বস্তুর তাসবিহ এবং এর মাধ্যমেই সব সৃষ্টিকে রিজিক দেওয়া হয়।

আর আমি তোমাকে নিষেধ করে যাচ্ছি দুটি বস্তু থেকে : শিরক ও অহংকার। বর্ণনাকারী বলেন, আমি বললাম, হে আল্লাহর রাসুল, শিরক তো আমরা বুঝলাম। কিন্তু অহংকার কী? আমাদের কারো যদি সুন্দর পোশাক থাকে, আর সে তা পরিধান করে। তবে এতে কি অহংকার হবে? তিনি বলেন, না। সে বলল, তাহলে আমাদের কোনো ব্যক্তির যদি এক জোড়া সুন্দর জুতা থাকে এবং এর দুটি সুন্দর ফিতা থাকে। তা কি অহংকারের আওতায় পড়বে? তিনি বলেন, না। সে বলল, তাহলে আমাদের কোনো ব্যক্তির যদি একটি বাহন জন্তু থাকে, যার ওপর সে আরোহণ করে। তাতে কি অহংকার হবে? তিনি বলেন, না। সে বলল, তাহলে আমাদের কারো বন্ধুবান্ধব রয়েছে, যাদের সঙ্গে সে ওঠাবসা করে। এতে কি অহংকার হবে? তিনি বলেন, না। সে বলল, হে আল্লাহর রাসুল, তাহলে অহংকার কী? তিনি বলেন, অহংকার হলো সত্যকে দম্ভভরে প্রত্যাখ্যান করা ও মানুষকে হেয় জ্ঞান করা।” (আদাবুল মুফরাদ হাদিস : ৫৪৮; মুসনাদে আহমাদ, হাদিস : ৬৫৮৩)

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2019 Bankbimabd
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebazarbankbimabd41